কিডনি বেচে আইফোন কিনেছিলেন, এখন ২৬ বছর বসয়ে শয্যাশায়ী।

কিডনি বেচে আইফোন কিনেছিলেন, এখন ২৬ বছর বসয়ে শয্যাশায়ী।
অ্যাপলের ব্র্যান্ড এর  প্রোডাক্ট দেখলেই সব সময় কেনার জন্য মন ছটফট করত চীনের আনহুই প্রদেশের বাসিন্দা ওয়াং সাংকুনের। কিন্তু  ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও অর্থের অভাবে কোন ভাবেই নামি এই ব্রান্ডের প্রোডাক্ট কিনতে পারছিলেন না। তাই  ইচ্ছে পূরণ করতে নিজের একটি কিডনি বেচে আইফোন ফোর ও আইপ্যাড ২ কিনেছিলেন ২০১১ সালে। কারন তখন ওয়াং সাংকুনের কাছে নিজের সপ্ন পূরণের জন্য নিজের কিডনি কে তুচ্ছ মনে হয়েছিলো তার।
কিন্তু বিধিবাম এখন বাকি আরেকটা কিডনিতে সমস্যা দেখা দেয়। তাই নিয়মিত ডায়ালিসিস করা  লাগে ওয়াং সাংকুনের।
ওয়াং সাংকুন জানান শুধু মাত্র আইফোন কেনার  মাত্র ১৭ বছর বসয়ের  ২০১১ সালে নিজের কিডনি বিক্রি করে দেন ।
সাংকুনের তখন মনে হয়েছিল নিজের কিডনির চেয়ে অ্যাপলের ওই দুটি প্রোডাক্ট তাঁর কাছে থাকা অনেক বেশি দামী। তখন তার মনে হয়েছিলো ’’দুটি কিডনি দিয়ে কী হবে, একটি যথেষ্ট‘‘ ।আর তাই নিজে কিডনি কেনাবেচার চক্রের একটি বিজ্ঞাপন দেখেই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এবং বেচে দেন নিজের একটি কিডনি।
 অস্ত্রোপচারের সময় কোণ স্বাস্থ্যসম্মত বিধি না মেনেই হুনান প্রদেশের একটি জায়গায় অস্ত্রোপচার করান ওয়াং সাংকুন ।এবং কিডনি বিক্রির টাকা দিয়ে ঘরে নিয়ে আসেন আই প্যাড ২ এবং আইফোন ফোর। কিন্তু ওয়াং সাংকুন তখন বুজতে পারেনি সে নিজের কী মারাত্মক ক্ষতি করেছে।
অস্ত্রোপচারের অল্প কয়েক দিনের মধ্যে আরেকটি কিডনি রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ে তাঁর। অস্ত্রোপচারের সময় কোণ স্বাস্থ্য বিধি না মানার কারনে, আরেকটি কিডনিতে সংক্রমণ হয়েছে এমনটা বলে জানিয়েলেন চিকিৎসকরা।  আর যার জন্য মাত্র ২৬ বছর বসয়ে ওয়াং সাংকুন নামের এই তরুন এখন শয্যাশায়ী, আর যার জন্য তার এখন নিয়মিত ডায়ালিসিস করা লাগে তার।

নিজের মেয়েকে ধর্ষণ থেকে বাঁচাতে ছেলেকে হত্যা করলো মা-বাবা

 

শিয়ালের কামড়ে আহত প্রায় অর্ধশত, আতঙ্কে রাত জেগে গ্রামবাসীর পাহারা

 

 

Scroll to Top